Online Micro Jobs



ঘরে বসে উপার্জন কে না করতে চাই। আর ঘরে বসে আয়ের অন্যতম মাধ্যম Online Jobs। অনলাইনে আয়ের কথা বললে অনেকে ভাবতে পারেন যে এটা অনেক কঠিন বিষয়। তবে ছোট ছোট কাজের মাধ্যমে অনেক সহজেই আপনি ঘরে বসে অনলাইনে আয় করতে পারেন। তবে কাজ করার পূর্বে যে কাজটি করতে চান সে বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করতে হবে। তবে কিছু কিছু কাজ আছে সেগুলোতে আপনার দক্ষতা না থাকলেও চলবে। কোনো ধরনের পূর্ব অভিজ্ঞতা ছাড়াই কাজগুলি আপনারা সহজেই করতে পারবেন। তবে কাজগুলো করতে আপনার অবস্যই ইন্টারনেট সংযোগ এবং কাজ করার জন্য একটা ডিভাইস থাকতে হবে।

এরকম কিছু কাজ নিয়ে আজকে আপনাদের সাথে আলোচনা করবো।
কোথা থেকে পাবেন এসব কাজ:

ফ্রিল্যান্সিং:

বর্তমান যুগে ফ্রিল্যান্সিং অনলাইন আয়ের অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম। অনেক পেশার মানুষ বর্তমানে পার্ট টাইম জব হিসেবে বাড়তি কিছু অর্থের আশায় ফ্রিল্যান্সিং করে থাকে। তবে অনেকে ফ্রিল্যান্সিং কে উপার্জনের একমাত্র মাধ্যম হিসাবে বেছে নিয়েছে। তবে ফ্রিল্যান্সিং করতে চাইলে আপনাকে অবস্যই নির্দিষ্ট কোন বিষয়ের উপর দক্ষতা অর্জন করতে হবে। আপনি যে বিষয়ের উপর দক্ষ সে বিষয়টা সিলেক্ট করে কাজ শুরু করে দিবেন। তবে প্রথম প্রথম কাজ পেতে একটু সমস্যা হলেও। কাজ করতে করতে এক সময় আর কাজের অভাব হবে না। সে সময় আপনাকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হবে না। মোটামুটি ভাবে কাজ করতে পারলে প্রতি মাসে আপনি ফ্রিল্যান্সিং করে ২০-৩০ হাজার টাকা আয় করতে পারবেন। ফ্রিল্যান্সিং এর অন্যতম সুবিধা হলো আপনি এখানে স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারবেন। কাজ না করলে কেউ আপনাকে কিছু বলবে না। হয়তো প্রথম প্রথম আপনাকে কাজ পেতে একটু কষ্ট হতে পারে তবে একসময় আপনাকে কাজের জন্য অনেকে রিকোয়েস্ট করবে।
সুতরাং বসে না থেকে কোন একটা বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করে আজই কাজে নেমে পড়ুন।

ইউটিউবিং:
অনলাইনে আয়ের বর্তমানে অধিক জনপ্রিয় একটি মাধ্যম হলো ইউটিউব। হ্যাঁ ঠিকই শুনছেন ইউটিউবের মাধ্যমে আয় করা সম্ভব। ইন্টারনেট জগতে এমন কেউ নেই যে প্রতিদিন কম করে হলেও একটি বার ইউটিউবে ভিডিও দেখে না। আমরা যে ভিডিও দেখি সেটি কোন ব্যক্তি কিংবা কোন প্রতিষ্ঠাণ ভিডিওটি তৈরি করে। এই ভিডিও যে তৈরি করে তাকে বলা হয় কন্টেন্ট ক্রিয়েটর। কন্টেন্ট ক্রিয়েটরের অধিকাংশ ইউটিউব থেকে আয় করে থাকে। কেউ আয় করে থাকে অ্যাডসেন্স এর মাধ্যমে। আবার ইউটিউব থেকে অনেকে মার্কেটিং এর মাধ্যমে আয় করে থাকে।

প্রতিটি মানুষ কোন না কোন বিষয়ে দক্ষ। আপনি যে বিষয়ে দক্ষ। সে বিষয় সম্পর্কে ভিডিও করে ইউটিউব থেকে আয় করতে পারেন। ইউটিউবে ভিডিও করলেই আয় হবে না। ইউটিউব থেকে বিভিন্ন কম্পানির এ্যাড আপনার ভিডিওতে দেখালেই আপনার ভিডিও থেকে আয় করা সম্ভব। তবে এই এ্যড দেখানোর জন্য আপনাকে ইউটিউবের দেওয়া কিছু শর্ত পুরন করতে হবে। বর্তমানে অনেক কন্টেন্ট ক্রিয়েটর ইউটিউব থেকে অনেক আয় করছে। ইউটিউব থেকে উপার্জন করতে হলে আপনাকে একটি ইউটিউব চ্যানেল থাকতে হবে। ভিডিও করার জন্য একটি ক্যামেরা থাকতে হবে তবে প্রাথমিক পর্যায়ে আপনার স্মার্টফোন দিয়ে কাজটি চালিয়ে নিতে পারেন।
সুতরাং আজ থেকেই আপনি যে বিষয়ে দক্ষ সে বিষয়ে নিয়মিত ভিডিও করে আপনার চ্যানেলে আপলোড করতে থাকুন।

ব্লগিং:
বর্তমানে ইউটিউবের পাশাপাশি ব্লগিং অনলাইনে আয়ের অন্যতম একটি জনপ্রিয় মাধ্যম হয়ে উঠেছে। কিছুদিন আগেও শুধুমাত্র শখের বসে ব্লগিং করা হতো। কিন্তু বর্তমানে ব্লগিং অনলাইন আয়ের অন্যতম একটি মাধ্যম হয়ে দাড়িয়েছে। কেউ কেউ আবার এটাকে সম্পূর্ণ পেশা হিসাবে নিয়েছে।
যদি আপনার লিখতে ভালো লাগে এবং অনেক বেশি অবসর সময় থাকে তবে অনলাইনে আয়ের অন্যতম একটি মাধ্যম হতে পারে ব্লগিং। তবে ব্লগিং করতে হলে প্রথমে আপনাকে প্রথমে ১০ ডলার খরচ করে একটা ডোমমেইন কিনতে হবে। পরবর্তীতে আপনাকে এই সাইটটিকে সুন্দর একটা ডিজাইন দিতে হবে। তারপর নিয়মিত লেখা শুরু করুন। ওয়েব সাইট সম্পর্কে আপনার সামান্য কিছু জ্ঞান থাকলে এ কাজগুলি সহজে করতে পারবেন। ওয়েব সাইট তৈরি করার পর আপনাকে নিয়মিত নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর লেখালেখি করতে হবে। এরপর আপনার ওয়েব সাইটটি অ্যাডসেন্স এর সাথে কিংবা বিভিন্ন অ্যাড সাইটের সাথে যুক্ত করতে হবে।
একটি ব্লগ কিংবা ওয়েব সাইটের প্রাণ হলো ভিজিটর। ওয়েব সাইটে যত বেশি ভিজিটর আসবে তত বেসি ইনকাম হবে। ভিজিটর বাড়ানোর জন্য আপনার ওয়েব সাইটটি বুস্ট করতে পারেন। তবে বুস্ট করতে আপনাকে নির্দিষ্ট পরিমাণ ডলারের প্রয়োজন হবে।
সুতরাং ব্লগিং থেকে আয় করতে চাইলে আজই একটি ডোমেইন কিনে লেখার কাজটি শুরু করে দিন।

এছাড়াও আপনি বিভিন্ন ছোট ছোট কাজ করে অনলাইন থেকে আয় করতে পারেন |

অনলাইন আয়ের ছোট কাজগুলি:
১। ওয়েবসাইট রিভিউ
২। অ্যাপ ডাউনলোড এবং রিভিউ
৩। ভিডিও দেখা
৪। গেম খেলে
৫। ওয়েবসাইট বা ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করা
৬। ডাটা এন্ট্রি
৭। অডিও শুনে লিখে
অনলাইনে আরও বিভিন্ন ধরনের কাজ করে আয় করতে পারেন।

অনলাইনে কাজ কেন করবেন?:

বর্তমানে জনসংখ্যার তুলনায় কর্মসংস্থানের পরিমাণ অনেক কম। কিংবা যে কাজ বা চাকরিটি করছে সেটির বেতনের পরিমাপ অনেক কম। নিজের বেকার অবস্থার অবস্থান ঘটাতে কিংবা পার্ট টাইম কাজ হিসাবে অনলাইন জবের বিকল্প নেই।
আমাদের অনুপ্রাণিত করতে
বন্ধুদের মাঝে নিউজটি শেয়ার করুন
ধন্যবাদ

Post a Comment

0 Comments