Header AD

বন্ধ হচ্ছে অবৈধ মোবাইল ফোন । আপনার যেটা জানা জরুরী

 


অবৈধ মোবাইল ফোন বন্ধ করে দেওয়া নিয়ে সরকারের পক্ষ থেকে গত দুই বছর ধরে নানা ধরনের কথা শোনা যাচ্ছে। নতুন করে আবারও শোনা যাচ্ছে আগামী ২০২১ সালের এপ্রিল মাস থেকে বন্ধ করা হবে অবৈধ মোবাইল ফোন। এ বিষয় নিয়ে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রনের কাছ থেকে কিছু প্রশ্ন জানতে চাইলে যে উত্তরগুলো পাওয়া গেছে। সেগুলো হলো.....


অবৈধ মোবাইল কোনগুলো?

যেসব মোবাইল ফোনগুলো বিটিআরসি এর অনুমোদন নিয়ে আমদানি কিংবা তৈরি করা হয়নি সে সব ফোনগুলোই অবৈধ সেট। সরকার ২০১৮ সাল থেকে অনুমোদিত সকল মোবাইলেরর ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ইকুয়েভমেন্ট আইডেন্টিটি IMEI নাম্বার দিয়ে একটি ডাটাবেজ তৈরি করেছে। এই ডেটাবেজ এ যদি কোন মোবাইলের তথ্য না থাকে সেগুলোই অবৈধ।

মোবাইল সেট বৈধ নাকি অবৈধ কিভাবে বুঝবেন?

আপনার মোবাইল সেটটি বৈধ নাকি অবৈধ সেটি জানার জন্য একটি পদ্ধতি জানানো হয়েছে। মোবাইলটি বৈধ কিনা জানতে আপনার মোবাইলের ডায়াল অপশন থেকে *#০৬# ডায়াল করে প্রথমে IMEI নাম্বারটি জেনে নিবেন। যদি আপনার মোবাইলে দুইটি IMEI নাম্বার আসে তবে যেকোন একটি নাম্বার কোথাও লিখে নিন। এরপর আপনার মোবাইলের মেসেজ অপশনে যেয়ে KYD লিখে স্পেস দিয়ে আপনার মোবাইলের IMEI নাম্বারটি লিখে ১৬০০২ নাম্বারে মেসেজ দিন। তবে মেসেজ টাইপ করার সময় অবশ্যই খেয়াল রাখবেন যেনো KYD এবং IMEI এর মাঝে শুধুমাত্র ১ টি স্পেস হয়। কারন একটির বেশি স্পেস দিলে বা স্পেস না দিলে আপনার ফোনের সঠিক তথ্য পাবেন না। মেসেজ বা এস এম এস টি পাঠানোর পরে ফিরতি মেসেজে আপনাকে জানিয়ে দেওয়া হবে আপনার মোবাইল সেটটি বৈধ নাকি অবৈধ। যদি মেসেজ আসে ডিভাইসটির IMEI বিটআরসি,র ডাটাবেইজে পাওয়া গেছে তবে মোবাইলটি বৈধ। আর যদি মেসেজ আসে ডিভাইসটির IEMI বিটিআরসি,র ডাটাবেইজে পাওয়া যায়নি। অনুগ্রহপূর্বক পূর্ণাঙ্গ IEMI লিখে পুনরায় চেষ্টা করুন। তাহলে বুঝতে হবে মোবাইল সেটটি বৈধ নয়।





অবৈধ মোবাইল কবে বন্ধ হবে?

বিটিআরসি,র পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে ২০২১ সালের
শুরুর দিকে অবৈধ মোবাইল বন্ধের কার্যক্রম শুরু হতে পারে। এখানে জানা প্রয়োজন আপনি যদি নতুন মোবাইল কিনতে যান তবে অবশ্যই উপরের নিয়ম অনুসারে নিশ্চিৎ করে নিবেন আপনার মোবাইল সেটটি বৈধ কিনা। না হলে পরবর্তীতে ভোগান্তিতে পড়তে হতে পারে।

ডাটাবেজে মোবাইল সেটের তথ্য না থাকলে কি হবে?

যখন অবৈধ মোবাইল বন্ধের প্রক্রিয়াটি বাস্তবায়ন হবে তখন সরকার চাইলে আপনার মোবাইলটি বন্ধ করে দিতে পারে। তবে বিটিআরসি,র চেয়ারম্যান এক্ষেত্রে জানিয়েছেন যদি মোবাইলটি দিয়ে কোন অনিয়ম, জালিয়াতি কিংবা প্রতারণা না করা হয়ে থাকে তাহলে মোবাইল ব্যবহারকারী সেটটিকে কোনভাবে রেজিস্ট্রেশন করার চেষ্টা করবে, আর সমস্যা থাকলে সমস্যা সমাধাণ করার চেষ্টা করবে বিটিআরসি। তবে বিষয়টি যেহেতু এখনও বাস্তবায়ন হয়নি সেহেতু কিভাবে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে কিংবা সমস্যার সমাধাণ হবে সে সম্পর্কে নিশ্চিৎ করে কিছু বলা যাচ্ছে না।

পুরোনো ফোনের কি হবে?

বিটিআরসি থেকে বলা হচ্ছে ২০১৮ সালের আগের অর্থাৎ ডেটাবেজ নথিভুক্ত শুরু হওয়ার আগের ফোনগুলো বন্ধ করা হবে না।

বিদেশ থেকে আনা মোবাইল কি অবৈধ?

বিদেশ থেকে আনানো মোবাইলের ক্ষেত্রে যেহেতু শুল্ক বিভাগের অনুমতি থাকে তাই এক্ষেত্রে অনলাইনে নিবন্ধনের মতো সুযোগ দেওয়ার চিন্তা করছে বিটিআরসি। এক্ষেত্রে ১-২ টা মোবাইলের জন্য সুযোগ দিতে পারে বিটিআরসি। তবে তার জন্য বিদেশ থেকে কেনা মোবাইলের রশিদ কাছে রাখার পরামর্শ দিয়েছে বিটিআরসি। তবে যদি বেশি সংখ্যাক মোবাইল বিদেশ থেকে আনা হয় তাহলে যেগুলোর অনুমোদন সহজ হবে না। তবে এসব বিষয়ে এখনও চুড়ান্ত কোন সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয় নি।

বেসিক ফোনও কি অবৈধ হতে পারে?

IMEI যেহেতু সকল ফোনে থাকে সেহেতু বেসিক ফোনগুলো এই নিয়মের আওতায় পড়বে। তবে এই প্রক্রিয়ার মধ্যে স্মার্টফোন বেসি প্রাধান্য পাবে।

এই সবগুলো বিষয় এখনও প্রক্রিয়াধীন। কিভাবে সম্পূর্ন প্রক্রিয়াটি বাস্তবায়ন হবে সেটি সময় আসলে সবচাইতে ভালো ভাবে বোঝা যাবে।

Post a Comment

Post a Comment (0)

Previous Post Next Post

ads

Post ADS 1

ads

Post ADS 1