২০০ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তি আনছে Xiaomi


বিশ্ববাজারে বর্তমানে Xiaomi কম্পানিটি শক্তিশালী অবস্থানে অবস্থান করছে। কয়েক বছরের ভেতর শাওমি ব্রান্ডটি তাদের স্মার্টফোনের জন্য জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। বিগত কয়েক বছরে কম্পানিটি বিভিন্ন ধরনের স্মার্ট ডিভাইস, টিভি, ল্যাপটপ ইত্যাদি তুলনামূলক কম দামে বাজারে এনে ক্রেতাসাধারণের মাঝে হইচই ফেলেছে। এমনিতে শাওমি কম্পানিটির প্রাই সকল প্রোডাক্ট জনপ্রিয়। বর্তমান বিশ্ববাজারে সকল স্মার্ট ডিভাইস নির্মাতারা তাদের সেরা স্মার্ট ডিভাইস বাজারে আনার চেষ্টা করছেন। প্রতিটি কম্পানি তাদের ডিভাইসে নতুন নতুন প্রিমিয়াম ফিচার আনছে। এ প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে নেই Xiaomi কম্পানিটি। শাওমি কম্পানিটি সর্বপ্রথম সর্বোচ্চ ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তি আবিষ্কার করে বিশ্ববাজারে সাড়া ফেলে। মাস কয়েক আগে তারা তাদের Mi 10 Ultra স্মার্টফোনে সর্বপ্রথম ১২০ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তি ব্যবহার করে। ১২০ ওয়াট চার্জিং প্রযুক্তি বাজারে আনার জন্য শাওমি কম্পানিটি বিশ্বের সুপার ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তির শীর্ষস্থানীয় ব্র্যান্ডের খেতাব অর্জন করেছে। তবে থেমে নেই কম্পানিটি। এবার নিজেদের রেকর্ডকে টেক্কা দিতে শাওমি কম্পানিটি ২০০ ওয়াট ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তির উপর কাজ করছে। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী বছরের প্রথম দিকে তারা বাজারে নিয়ে আসবে তাদের ২০০ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তির অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন।

Weibo তে টিপস্টার ডিজিটাল চ্যাট স্টেশন দাবি করেছে যে শাওমি কম্পানিটি তাদের পরবর্তী স্মার্টফোন গুলিতে ২০০ ওয়াট প্রযুক্তি যোগ করবে। সাথে থাকবে ২০০ ওয়াটের ফাস্ট চার্যার। তবে এই প্রযুক্তি বাজারে আনতে ২০২১ সালের মাঝ নাগাত সময় লেগে যেতে পারে। শাওমির প্রথম আবিষ্কার ১২০ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তির Mi 10 Ultra ডিভাসের ৪৫০০ এ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি ফুল চার্য হতে সময় লাগে মাত্র ২৩ মিনিট। তবে আগামীতে ২০০ ওয়াটের ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তি বাজারে আসলে ৪৫০০ এ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি সম্পূর্ন চার্জ হতে সময় লাগবে মাত্র ১৫ মিনিট।
প্রযুক্তিটি বাজারে আসলে পূর্বের মতো স্মার্টফোনে চার্জ দিতে আর কাওকে ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থাকেত হবে না। একটি চায়ের কাপে চুমুক দিতে দিতে আপনি আপনার স্মার্টফোনটিকে সম্পূর্ন চার্জ করে নিতে পারেন।
তবে ফাস্ট চার্জিং প্রযুক্তির একটি বড় সমস্যা হলো।
এ প্রযুক্তিতে আপনার ডিভাইসটি দ্রুত চার্য হবে এটা সত্য। কিন্তু চার্জ শেষ হয়ে যায়ও তাড়াতাড়ি। তবে দেখা যাক ২০০ ওয়াট প্রযুক্তিতে ফোনগুলোর ব্যাটারি ব্যাকআপ কেমন হয়।
হয়তো শাওমিকে অনুকরণ করে অন্য কম্পানিগুলো প্রযুক্তিটি বাজারে আনতে পারে।
আপনার কি মতামত?।
স্মার্টফোনে ২০০ ওয়াটের এত বেসি ফাস্ট চার্জিং কি প্রয়োজন। আপনার মতামত অবস্যই কমেন্ট বক্সে জানাবেন।
আমাদের অনুপ্রাণিত করতে
বন্ধুদের মাঝে নিউজটি শেয়ার করুন
ধন্যবাদ

Post a Comment

0 Comments