Header AD

প্রাণ বাঁচালো Apple Watch

Apple Watch


বিভিন্ন ফিচার নিয়ে বর্তমানে বিভিন্ন কম্পানি নতুন নতুন ফিচার নিয়ে স্মার্ট ওয়াচ বাজারে নিয়ে আসছে। বর্তমানে প্রযুক্তি বাজারে এসব স্মার্ট ওয়াচের জনপ্রিয়তাও অনেক বেশি। Samsung, Xiaomi সহ বিভিন্ন কম্পানি নতুন স্মার্ট ওয়াচ বাজারে আনলেও Apple Watch রয়েছে জনপ্রিয়তার শীর্ষে। এসব স্মার্ট ওয়াচগুলো বিভিন্ন ফিচার থাকার কারণে ব্যবহারকারীরা বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা পেয়ে থাকে।


মানুষ সাধারণত সৌখিনতার জন্য এসব স্মার্টওয়াচ ব্যবহার করলেও অত্যাধুনিক ফিচারের কারণে এটি মানুষের জীবন বাঁচাতেও সক্ষম। বিষয়টি নিয়ে আশ্চর্য হলেও এমনিই ঘটেছে ২৫ বছর বয়সি এক রোগীকে ঘিরে। সম্প্রতি একটি খবর প্রকাশ হয়েছে যেখানে বলা হয়েছে, ২৫ বছর বয়সি এক যুবক Friedreich’s Ataxia নামক জিনগত একটি রোগে আক্রান্ত ছিলো। যুককটির জীবন বাঁচিয়েছে Apple Watch। ওই রোগী ওহায়ো টেস্ট ইউনিভার্সিটির স্নাতক বিভাগের ছাত্র।



তবে Apple Watch এর জীবন বাঁচানোর ঘটনা এই প্রথম এমনটি নয়। অনেক বার এমন খবর জানা গিয়েছে Apple Watch ব্যবহারকারীর শারীরিক সুস্থতায় বড় ধরণের ভূমিকা পালন করে আসছে। তবে নতুন করে আবারও এক যুবকের জীবন বাঁচিয়ে আবারও ব্যবহারকারীদের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে Apple Watch। বেঁচে যাওয়া ঐ যুবকটির নাম জাচারি জিয়েস।



জাচারি জিয়েস একটি মারাত্বক ধরণের রোগে ভুগছিলেন। এ রোগটি হার্ট, মস্তিষ্ক এবং মেরুদণ্ড সহ দেহের বিভিন্ন অঙ্গকে প্রভাবিত করে। Apple Watch এর একটি গুরুত্বপূর্ণ ফিচারের কারণে মানুষের হৃৎস্পন্দন সঠিকভাবে পরিমাপ করা যায়। জাচারি জিয়েস কঠিণ রোগে আক্রান্ত হওয়ার কারণে বার বার Apple Watch এর মাধ্যমে তার হৃদস্পন্দন লক্ষ্য করতেন। সাধারণত স্বাভাবিক অবস্থায় একজন অ্যাথলেটের হার্ট রেট মিনিটে ৪০ বার এর বেশি হয় না। কিন্তু জাচানি জিয়েসের হার্ট রেট হঠাৎ করে ২১০ এ পৌঁছে যায় যা স্বাভাবিক এর তুলনায় অনেক বেশি। তরুন এ রোগী এমন অস্বাভাবিক হৃৎস্পন্দন দেখে বুঝতে পারে সে বিপদে পড়তে যাচ্ছে এবং তিনি দ্রুত ডাক্তারের কাছে যান। ডাক্তার সর্বপ্রথম তাকে একটি পদ্ধতির মধ্য দিয়ে নিয়ে যান। এই পদ্ধতিতে যেসব কোষ হৃৎস্পন্দন অস্বাভাবিক ভাবে বাড়িয়ে দেয় সেগুলোকে কেঁটে বাদ দেওয়া হয়। তবে এটা সত্য যে জিয়েসের সুস্থ হওয়ার পেছনে Apple Watch এর অবদান অনেক বেশি।
বর্তমানে আমরা আধুনিক বিশ্বে প্রতিটি পদেই প্রযুক্তির অনেক অবদান লক্ষ্য করি। বিভিন্ন নতুন নতুন প্রযুক্তির কল্যাণে অনেক কঠিন কাঁজগুলো আমাদের জন্য অনেক বেশি সহজ হয়ে যাচ্ছে। প্রযুক্তি আমাদের পরম বন্ধু। আমাদের কাজ সহজ করার পাশাপাশি প্রযুক্তি আমাদের জীবন বাঁচাতেও অনেক ভূমিকা পালন করছে। প্রযুক্তির এতটাই উন্নতি হয়েছে যে একটি ঘড়িও মানুষের জীবন বাঁচাতে পারে।
Apple Watch জীবন বাঁচানোর ঘটনা এই প্রথম নয়। এর আগে ৬৭ বছরের এক বৃদ্ধের জীবন বাঁচিয়েছিলো এই ঘড়িটি।

Post a Comment

Post a Comment (0)

Previous Post Next Post

ads

Post ADS 1

ads

Post ADS 1