Header AD

বাংলাদেশের বড় জলপ্রপাতগুলির মধ্যে একটি জাদিপাই ঝর্না

জাদিপাই ঝর্না- এটি বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ এবং বড় জলপ্রপাতগুলির মধ্যে একটি। এটি আপনার ভ্রমণের  জন্য  খুবই সুন্দর একটি গন্তব্য। বর্সার সময়জাদিপাই ঝর্নার জলরাশির প্রবাহ আরও শক্তিশালী ও দৃঢ় হয়ে ওঠে। আর এই জলরাশির পানি অনেক শীতল এবং স্বচ্ছ। তাই জাদিপাই ঝর্না হতে পারে আপনার ভ্রমণের জন্য দারুণ একটি স্থান।

জাদিপাই ঝর্না এর আসে-পাশের প্রাকৃ্তিক পরিবেশ এবং সৌন্দর্য সকলকে মুগ্ধ করে দেয়। সবুজ পাহাড়ের চমকপ্রদ সৌন্দার্য, শীতল ফোয়ারা, ঝুড়ি পথ, পাহাড়ের ঢালু, পাহাড়ের উপর মেঘের লুকোচুরি,উপজাতীদের পাহাড়ে জুম চাষ এই সব কিছুই এই পাহাড়ি এলাকার প্রধান প্রধান দৃশ্য। বান্দরবানের পাহাড়ের মধ্য দিয়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে অসংখ্য জলপ্রপাত। যখন আপনি সেখানে পৌছাবেন তখন আপনি শান্তি এবং শান্তি এক কামনা অনুভব করবেন।
আমি বাংলাদেশের অনেক জলপ্রপাত পরিদর্শন করেছি কিন্তু আমার পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী জাদিপাই ঝর্না সবচেয়ে সুন্দর এবং দৃষ্টিনন্দন জলপ্রপাত। আমার সত্য ভ্রমণ অভিজ্ঞতার থেকে জাদিপাই এর জলরাশির পতনের সৌন্দর্য উপভোগ করেছি।
জাদিপাই ঝর্না

অবস্থানঃ
জাদিপাই জল্প্রপাত বাংলাদেশের বান্দরবান জেলার কেওকরুং উপজেলায় অবস্থিত। এটি বান্দরবানের বন্য ও পার্বত্য অঞ্চেলের ভীতরে জাদিপাই ঝর্না অবস্থিত। এটি বাংলাদেশের সবথেকে সুন্দর এবং আকর্ষণীয় জলপ্রপাত। এই জলপ্রপাত বাংলাদেশের সব জলপ্রপাতের রানী।
যদি আপনি প্রাকৃতিক এই অপরূপ দৌন্দর্য উপভোগ করতে চান তাহলে আপনাকে জাদিপাই জলপ্রপাতের স্থানে যেতে হবে। আপনি আখানে আসলে অনেক কিছু দেখতে পারবেন, কারণ জাদিপাই জলপ্রপাতের আসেপাশে অনেক সুন্দর সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্য রয়েছে। যা আপনাকে মুগ্ধ করে তুলবে।
কি ভাবে যাবেনঃ
আপনি যদি ঢাকা থেকে বাসে করে জাদিপাই জলপ্রপাত দেখতে যেতে চান, তাহলে প্রথমে ঢাকা থেকে বান্দরবানের বাসে উঠে বান্দরবান জেলা শহরে পৌছাতে হবে । তারপর বান্দরবান শহর থেকে স্থানীয় বাসে বা পাবলিক জিবে করে কেওক্রুং যেতে হবে। কেওকারুং যাবার পর সরু রাস্তা ধরে ৫-১০ মিনিট হাটার পর জাদিপাই জলপ্রপাতের নিকট পৌছায় যাবেন।
বোগালেকের বিস্ময়কর দৃশ্যঃ
জাদিপাই জলপ্রপাতের একটু পাশেই বোগালেক অবস্থিত । বোগালেক খুবই একটি সুন্দর জায়গা। লেকের চারপাশে সবুজ পাহাড়ে ঘেরা যা দেখে আপনি মুগ্ধ হয়ে যাবেন। এছাড়া লেকের আসেপাশে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অনেক গুলো ক্যাম্প রয়েছে। এজন্য বোগালেকে যেতে হলে সংশ্লিষ্ট নিরাপত্তার কারণে অবশ্যই আপনাকে সেনাবাহিনী ক্যাম্পে নিবন্ধন করতে হবে। এছাড়া ওখানে আপনি যদি রাতে থাকতে চান তার ও সুন্দর ব্যবস্থা আসে। আপনি যদি বোগালেকে রাত থাকেন তাহলে রাতের বেলায় বোগালেক অন্য রকম সৌন্দর্য ধারন করে। যা দেখলে আপনাকে আর ফিরতে ইচ্ছে করবে না।
আমার ভ্রমণের কিছু বর্ণ্নাঃ
জাদিপাই ঝর্না


আমার জাদিপাই জলপ্রপাতের উপর কেকরডং এ নিচের সমতল ভুমি থেকে পৌছাতে ২ ঘণ্টা ৩০ মিনিট সময় লেগেছিল। এই ভ্রমণে লাইন বরাবর “পাসিং প্যারা” এবং “জেড পাড়া” অতিক্রম করতে হয়। এটি একটি মট অব্যাহত ট্রেকিং ছিল এবং এটিতে আমার শারিরিক ও মানসিক শক্তির চরম পর্যায় চলে গিয়েছিল। আমি এবং আমার বন্ধুরা ট্রেকিং পদ্ধতির মাধ্যমে পাসিং পাড়া ও জেড পাড়াতে কিছুটা সময় বিশ্রাম নিয়েছিলাম। স্থানীয় অধিবাসীরা ধারণা করেন জাডি একটি “অগ্নিশিখা”। আমরা উপরে ওঠার সময় আসে পাশের অপরূপ সৌন্দর্য দেখতে উপভোগ করি । আশা করি আপনারা এই জায়গায় আসলে এখানকার অপরূপ সৌন্দর্য দেখে মুগ্ধ হয়ে যাবেন।

Post a Comment

Post a Comment (0)

Previous Post Next Post

ads

Post ADS 1

ads

Post ADS 1